রাতে পাঞ্জাবের বিপক্ষে মাঠে নামবে কলকাতা

ঢাকা, ১৩ এপ্রিল
ডেস্ক : এবারের আইপিএলে এখন পর্যন্ত ২ ম্যাচ খেলে ফেলেছে কলকাতা নাইট রাইডার্স। শ্রীলঙ্কা সফর শেষে কলকাতার প্রথম ম্যাচের দিন দলের সঙ্গে যোগ দেয়া সাকিব আল হাসানের এখনো মাঠে নামা হয়নি। আজ কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের বিপক্ষে বাংলাদেশি অলরাউন্ডারকে একাদশে রাখবে কলকাতা?

এই আইপিএলে আজই প্রথম ঘরের মাঠে খেলবে কলকাতা। কলকাতার ইডেন গার্ডেনে দিনের একমাত্র ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ৮টায়। টিভিতে সরাসরি দেখাবে সনি সিক্স ও সনি ইএসপিএন চ্যানেল। ১০ উইকেটের রেকর্ড জয়ে আইপিএল অভিযান শুরু করেছিল কলকাতা। তবে গৌতম গম্ভীরের নেতৃত্বাধীন দলটি দ্বিতীয় ম্যাচেই পায় হারের তিক্ত স্বাদ।

মুম্বাইয়ের বিপক্ষে ওই ম্যাচে দুঃস্বপ্ন হয়ে আসে আবার ক্রিস লিনের চোট। ফিল্ডিংয়ের সময় কাঁধে চোট পেয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য মাঠের বাইরে ছিটকে গেছেন প্রথম ম্যাচে ৪১ বলে অপরাজিত ৯৩ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলা অস্ট্রেলিয়ান এই ব্যাটসম্যান। আজ তাই সাকিবের একাদশে থাকার প্রবল সম্ভাবনা আছে।

গত আইপিএলে কলকাতার কাছে হোম আর অ্যাওয়ে- দুটি ম্যাচই হেরেছিল পাঞ্জাব। ২ দলের শেষ ৭ ম্যাচেই পাঞ্জাবকে হারিয়েছে কলকাতা। সব মিলিয়ে পাঞ্জাবের বিপক্ষে কলকাতার জয়-পরাজয়ের রেকর্ডটা ১৩-৬। যেটি ইডেন গার্ডেনে ৬-২।

সেরানিউজ২৪/আই.জে

ভারতকে ছাড়িয়ে গেল পাকিস্তান

ঢাকা, ১২ এপ্রিল
ডেস্ক : একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ভারতকে ছাড়িয়ে দ্বিতীয় সেরা দল হয়েছে পাকিস্তান। গায়ানায় মঙ্গলবার ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারানোর মাধ্যমে এই কৃতিত্ব অর্জন করেছে। পাকিস্তান এখন একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দ্বিতীয় সর্বাধিক জয়প্রাপ্ত দল। শীর্ষে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া। আর তৃতীয় স্থানে নেমে গেছে ভারত।

পাকিস্তান এখন পর্যন্ত ৮৭৪টি ওডিআই ম্যাচ থেকে জয় পেয়েছে ৪৬০টি। আর ভারত ৯০৭টি ওডিআই ম্যাচ থেকে জয় পেয়েছে ৪৫৯টি। অস্ট্রেলিয়া ৮৯৮টি ম্যাচ থেকে জয় পেয়েছে ৫৫৪টি।

সেরানিউজ২৪/আই.জে

কলকাতার হার নাটকীয় ম্যাচে

ঢাকা, ১০ এপ্রিল,
ডেস্ক : আগের ম্যাচে দুর্দান্ত জয় পেয়েছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স। ধারণা করা হয়েছিল, দলের শক্তি বাড়াতে তারা সাকিব আল হাসানকে মাঠে নামাবে। না আইপিএলে কাল কলকাতার সেরা একাদশে জায়গা হয়নি বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের। শ্রীলঙ্কার সিরিজ শেষ করেই তিনি ছুটে যান আইপিএল খেলতে। সাকিব মাঠে না নামলেও ম্যাচ জয়ের উজ্জ্বল সম্ভাবনা ছিল কলকাতার। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে তারা ৭ উইকেটে ১৭৮ রান সংগ্রহ করে। পান্ডে অপরাজিত ৮১, লিওন ৩২, গম্ভীর ১৯ রান করেন।

১৭৯ রানের লক্ষ্য নিয়ে খেলতে নেমে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস শুরুটা ভালোই করেছিল। প্যাটেল ও বাটলার জুটি ৬৫ রান যোগ করে। এরপর ৯৭ রানে দলের ৪ উইকেট পড়ে গেলে ম্যাচ চলে আসে কলকাতার নিয়ন্ত্রণে। এক সময় মনে হচ্ছিল শাহরুখের দল সহজভাবেই ম্যাচটি জিততে যাচ্ছে। কিন্তু ক্রিকেট যে অনিশ্চয়তার খেলা। এক বল আর ৪ উইকেট হাতে থেকেই নাটকীয়ভাবে ম্যাচ জিতে নেয় মুম্বাই। রানা সর্বোচ্চ ৫০ রান করেন।

সেরানিউজ২৪/আই.জে

রাতে মাঠে নামছে বার্সেলোনাও

ঢাকা, ০৮ এপ্রিল
ডেস্ক : লা লিগায় আজ হাইভোল্টেজ ম্যাচ। প্রথম ম্যাচে অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে মাঠে নামবে রিয়াল মাদ্রিদ। আর অন্য ম্যাচে মাঠে নামছে বার্সেলোনা। তারা আজ খেলবে মালাগার বিপক্ষে। আজ শনিবার বাংলাদেশ সময় রাত পৌনে একটায় মালাগার মাঠে খেলতে নামবে লা লিগার বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বার্সেলোনা।

পয়েন্ট টেবিলের নীচের দিকের দল মালাগা। ফুটবল ঐতিহ্য আর শক্তির বিচারে তাদের চেয়ে যোজন যোজন এগিয়ে বার্সেলোনা। কিন্তু মুখোমুখি লড়াইয়ের গত কয়েক ম্যাচের ফল আর মৌসুমের শেষ পর্যায়ে এসে ‘পুঁচকে’ দলটির বিপক্ষেই বাড়তি সতর্ক থাকতে হচ্ছে লুইস এনরিকে দলকে।

২০১৫ সালে লুইস এনরিকে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে মালাগার বিপক্ষে পাঁচবারের দেখায় মাত্র দুটিতে জিতেছে বার্সেলোনা। এবার লিগে প্রথম পর্বে ঘরের মাঠে দলটির সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করে কাতালান ক্লাবটি।

লিগ টেবিলে ৩০ ম্যাচে ৬৯ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে বার্সেলোনা। এক ম্যাচ কম খেলা রিয়াল মাদ্রিদ ২ পয়েন্ট বেশি নিয়ে আছে শীর্ষে। এমন অবস্থায় শিরোপা ধরে রাখার সম্ভাবনা ধরে রাখতে এবং চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের উপর চাপ বজায় রাখতে জয়ের বিকল্প নেই বার্সেলোনার। কোচ এনরিকের কণ্ঠেও তাই সংকল্প।

সেরানিউজ২৪/আই.জে

বিদায়ী দলনেতার জন্য ৪৫ রানের জয় উপহার

ঢাকা, ০৬ এপ্রিল
ডেস্ক : টাইগারদের ছুঁড়ে দেওয়া ১৭৭ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ১৮ ওভারে ১৩১ রানেই গুটিয়ে যায় শ্রীলঙ্কা। ফলে, বাংলাদেশের টি-২০ দলের বিদায়ী দলনেতার জন্য টাইগারদের উপহার হল ৪৬ রানের দুর্দান্ত জয়। একইসাথে দুই ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজ সমতায় রেখে শেষ করলো শ্রীলঙ্কা-বাংলাদেশ। টেস্ট (১-১), ওয়ানডে (১-১) বা টি-টোয়েন্টি (১-১) কোনো সিরিজই জিততে পারেনি স্বাগতিক লঙ্কানরা।

দারুণ সূচনা করেও মাশারাফি বিন মর্তুজার বিদায়ী ম্যাচে বড় স্কোর পায়নি বাংলাদেশ। ইনিংস শেষ হলো ১৭৬ রানে। প্রথম ১৩ ওভারে ২ উইকেটে ১২৪ রান তোলা বাংলাদেশ শেষ ৭ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে তুলেছে মাত্র ৪৮ রান।

জয় দিয়ে অধিনায়কের শেষ ম্যাচটিকে রঙিন করে রাখার দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে দুই ম্যাচ সিরিজের শেষ টি-টোয়েন্টিতে লঙ্কানদের মুখামুখি হয় টাইগাররা। আজ বৃহস্পতিবার ম্যাচটি শুরু হয় বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায়। ক্যারিয়ারের শেষ টি-টোয়েন্টি খেলতে নামা টাইগারদের দলপতি মাশরাফি টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজের শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ঘুরে দাঁড়িয়ে সমতা আনার লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নামেন সৌম্য সরকার আর ইমরুল কায়েস। ইনিংসের সপ্তম ওভারে বিদায় নেন সৌম্য সরকার। গুনারত্নের বলে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি। বিদায়ের আগে ইমরুলের সঙ্গে ওপেনিং জুটিতে ৭১ রান তোলেন সৌম্য। ব্যক্তিগত ৩৪ রান করেন তিনি। তার ১৭ বলের ইনিংসে ছিল চারটি চার আর দুটি ছক্কার মার। ইমরুল-সাব্বির জুটি বড় হয়নি। অষ্টম ওভারে রান আউট হন ৩৬ রান করা ইমরুল। তার ২৫ বলের ইনিংসে ছিল চারটি চার আর একটি ছক্কার মার। দলীয় ৭৮ রানের মাথায় দ্বিতীয় উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ১২৪ রানের মাথায় তৃতীয় উইকেটের পতন হয়। ১৮ বলে ১৯ রান করে সঞ্জয়ার বলে ১৪তম ওভারে বোল্ড হস সাব্বির। সাকিবের সঙ্গে ৪৬ রানের জুটি গড়েন তিনি।

টাইগারদের চতুর্থ ব্যাটসম্যান হয়ে বিদায় নেন সেট ব্যাটসম্যান সাকিব আল হাসান। ব্যক্তিগত ৩৮ রানে ফেরেন তিনি। ৩১ বলে চারটি চারটি বাউন্ডারির সাহায্যে তিনি তার ইনিংসটি সাজান। ১৩৯ রানের মাথায় বিদায় নেন সাকিব। কুলাসেকারার বলে বোল্ড হন তিনি। ১৮তম ওভারের প্রথম বলে থিসারা পেরেরা ফেরান মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে। বিদায় নেওয়ার আগে ১১ বলে একটি চার আর একটি ছক্কায় ১৭ রান করেন তিনি। দলীয় ১৫২ রানের মাথায় বাংলাদেশ পঞ্চম উইকেট হারায়। ইনিংসের ১৯তম ওভারে বোলিং আক্রমণে আসেন মালিঙ্গা। সেই ওভারের তৃতীয়, চতুর্থ আর পঞ্চম বলে আউট করেন মুশফিক, মাশরাফি এবং মিরাজকে। হ্যাটট্রিক করতে প্রথম দুটি উইকেট নেন বোল্ড করে। মুশফিক ৬ বলে ১৫ রান করে বিদায় নেন। মাশরাফি আর অভিষিক্ত মিরাজ কোনো রান না করেই ফেরেন। মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ৪ রানে অপরাজিত থাকেন। ইনিংসের শেষ বলে রান আউট হন সাইফউদ্দিন (৬)।

অন্যদিকে, শ্রীলঙ্কার ইনিংসের প্রথম উইকেটের পতন ঘটান সাকিব আল হাসান। ইনিংসের প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলে ওপেনার কুসল পেরেরাকে বোল্ড করেন তিনি। শুধু তাই নয়। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের হাতে ক্যাচ বানিয়ে দিলশান মুনাবিরাকে ফিরিয়ে দেন সাকিব। এরপর শ্রীলঙ্কার দলীয় ৪০ রানে মেহেদী হাসান মিরাজের হাতে ক্যাচ বানিয়ে উপুল থারাঙ্গাকে সাজঘরে ফেরান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে মাশরাফি বিন মুর্তজা প্রথমবারের মতো বল তুলে দেন ‘কাটার মাস্টার’ মোস্তাফিজুর রহমানের হাতে। তিন উইকেটে শ্রীলঙ্কার রান তখন ৪০। বল করতে এসে ওভারের প্রথম বলেই মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের হাতে ক্যাচ বানিয়ে আসেলা গুনারত্নেকে ব্যক্তিগত শূন্য রানে ফিরিয়ে দেন মোস্তাফিজ। দ্বিতীয় বলে সৌম্য সরকারের হাতে ক্যাচ বানিয়ে মিলিন্দা সিরিবর্দনেকে ফেরান তিনি। সিরিবর্দনেও ফেরেন ব্যক্তিগত শূন্য রানে। তারপর চামারা কাপুগেদারা ও থিসারা পেরেরা ৫৮ রানের পার্টনারশীপ গড়েন। শ্রীলঙ্কার দলীয় ৯৮ রানে নিজের তৃতীয় উইকেট শিকার করেন সাকিব আল হাসান। স্ট্যাম্পিং হয়ে সাজঘরে ফিরে যান থিসারা পেরেরা। ২৩ বল খেলে তিনি করেন ২৭ রান।

১৬তম ওভারে সেকুগে প্রসন্নকে বোল্ড করেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। ১৭তম ওভারে মোস্তাফিজুর রহমান নিজের তৃতীয় ওভারের বল করতে এসে চামারা কাপুগেদারা ও লাসিথ মালিঙ্গাকে সাজঘরে ফেরান। কাপুগেদারা ৩৫ বল খেলে ৫০ রান করেন। ১৮তম ওভারে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের বলে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের হাতে ক্যাচ হন ভিকুম সঞ্জয়া।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বাংলাদেশ ইনিংস: ১৭৬/৯ (২০ ওভার)
(ইমরুল কায়েস ৩৬, সৌম্য সরকার ৩৪, সাব্বির রহমান ১৯, সাকিব আল হাসান ৩৮, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ১৭, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৪*, মুশফিকুর রহিম ১৫, মাশরাফি বিন মুর্তজা ০, মেহেদী হাসান মিরাজ ০, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ৬*; লাসিথ মালিঙ্গা ৩/৩৪, নুয়ান কুলাসেকারা ১/৩০, দিলশান মুনাবিরা ০/২২, ভিকুম সঞ্জয়া ১/৩২, আসেলা গুনারত্নে ১/১৫, সেকুগে প্রসন্ন ০/১৭, থিসারা পেরেরা ১/২৪)

শ্রীলঙ্কা ইনিংস: ১৩১ (১৮ ওভার)
(কুসল পেরেরা ৪, দিলশান মুনাবিরা ৪, উপুল থারাঙ্গা ২৩, চামারা কাপুগেদারা ৫০, আসেলা গুনারত্নে ০, মিলিন্দা সিরিবর্দনে ০, থিসারা পেরেরা ২৭, সেকুগে প্রসন্ন ১১, নুয়ান কুলাসেকেরা ২*, লাসিথ মালিঙ্গা ০, ভিকুম সঞ্জয়া ৬; সাকিব আল হাসান ৩/২৪, মাশরাফি বিন মুর্তজা ১/৩০, মেহেদী হাসান মিরাজ ০/১৫, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ১/১৫, মোস্তাফিজুর রহমান ৪/২১, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ১/২৪)

ফলাফল: ৪৫ রানে জয়ী বাংলাদেশ

সেরানিউজ২৪/আই.জে

চেলসির কাছে সিটির হার ম্যান সিটির

ঢাকা, ০৬ এপ্রিল
ডেস্ক : সার্জিও আগুয়েরোর গোলে ঘুরে দাঁড়ালেও শেষ রক্ষা করতে পারেনি ম্যানচেস্টার সিটি। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ ম্যাচে চেলসির মাঠ থেকে ২-১ গোলের হার নিয়ে ফিরেছে পেপ গার্দিওলার দল।

বুধবার রাতে নিজেদের মাঠ স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে দশম মিনিটেই এগিয়ে যায় আগের লিগ ম্যাচে ক্রিস্টাল প্যালেসের কাছে হেরে আসা চেলসি। সেজার আসপিলিকুয়েতার বাড়ানো বলে এডেন হ্যাজার্ডের জোরালো শট ঠিকানা খুঁজে পায়।

চেলসি গোলরক্ষক থিবো কোরতোয়ার ভুলের সুযোগ কাজে লাগিয়ে ২৬তম মিনিটে সমতায় ফেরে সিটি। কোর্তোয়ার শট সোজা পেয়ে যান ৩০ গজ দূরে থাকা দাভিদ সিলভা। স্পেনের এই মিডফিল্ডারের শট ফেরালেও ছোট ডি-বক্সের একটু বাইরে থাকা আগুয়েরোর শট আটকাতে পারেননি বেলজিয়ামের এই গোলরক্ষক।
চেলসির কাছে সিটির হার ম্যান সিটির

পেনাল্টির সুযোগ কাজে লাগিয়ে ৩৫তম মিনিটে ফের এগিয়ে যায় চেলসি। ফের্নান্দিনিয়ো ডি-বক্সের মধ্যে পেদ্রো রদ্রিগেসকে ফাউল করলে পেনাল্টির বাঁশি বাজিয়েছিলেন রেফারি। হ্যাজার্ডের দুর্বল শট বাঁ দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে ফেরালেও পুরোপুরি বিপদমুক্ত করতে পারেননি উইলি কাবালেরো; ফিরতি শটে লক্ষ্যভেদ করেন বেলজিয়ামের এই ফরোয়ার্ডই।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে সমতায় ফিরতে পারত গার্দিওলার দল। কিন্তু অধিনায়ক ভিনসেন্ট কোম্পানির হেড ফিরিয়ে দেয় ক্রসবার। আর শেষ দিকে আগুয়েরোর বাড়ানো সুযোগ নলিতো কাজে লাগাতে ব্যর্থ হলে লিগে টানা তিন ড্রয়ের পর এবার হেরেই যায় সিটি।

এই জয়ে লিগ শিরোপা জয়ের আরও কাছে পৌঁছুল চেলসি। ৩০ ম্যাচে ৭২ পয়েন্ট আন্তোনিও কোন্তের দলের। চতুর্থ স্থানে থাকা সিটির পয়েন্ট ৫৮।

সেরানিউজ২৪/আই.জে

শ্রীলঙ্কাকে ১৫৬ রানের টার্গেট দিয়েছে বাংলাদেশ

ঢাকা, ০৪ এপ্রিল
ডেস্ক: সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে শ্রীলঙ্কাকে ১৫৬ রানের টার্গেট দিয়েছে বাংলাদেশ। আজ শুরুতে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ওভার ৬ উইকেটের বিনিময়ে ১৫৫ রান করে মাশরাফিরা। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৩৪ রান আসে মোসাদ্দেকের ব্যাট থেকে। এ ছাড়া দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩১ রান আসে মাহমুদুল্লার ব্যাট থেকে। লঙ্কানদের হয়ে সর্বোচ্চ ২টি উইকেট নেন পেসার মালিঙ্গা।

এদিকে আজ টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই তামিমের উইকেট হারায় বাংলাদেশ। তবে সেখান থেকে কিছুটা উদ্ধার করার চেষ্টা করেন সোমৗ ও সাব্বির। তবে ৫৭ রানের জুটি গড়েই থামতে হয়েছে তাদের। পর ২ বলের ব্যাবধানে ফিরে যান সৌম্য-সাব্বির। সাব্বির খেলেন ১৬ রানের ইনিংস। আর সৌম্য খেলেন ২৯ রানের ইনিংস। তাদের বিদায়ের পরে ক্রিজে আসেন মুশফিক-সাকিব। ব্যার্থ তারাও মাত্র ১৩ রানের জুটি গড়ে মুশফিক ৮ রানে, আর সাকিব ১১ রানে বিদায় নেন।

তবে সেখান থেকে দলকে একটা সম্মানজনক স্থানে নিয়ে যান মোসাদ্দেক-মাহমুদউল্লাহ। এই জুটি থেকে আসে ৫৭ রান। মোসাদ্দেক করেন ৩৪ রান ,আর রিয়াদ করেন ৩২ রান। তবে শেষ দিকে ৫ বলে ৯ রান করে দলকে দেড়শো রানের কোটা অতিক্রম করার কৃতিত্ব অধিনায়ক মাশরাফির।

সেরানিউজ২৪/আই.জে